২০ নভেম্বর, ২০১৮ । ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫

কারাগারে ডিভিশন দেওয়া হয়নি খালেদা জিয়াকেঃ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ

নিজস্ব প্রতিবেদক | ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮ - ৭:০৮ অপরাহ্ণ


খালেদা জিয়াকে কারাগারে ডিভিশন দেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেছেন, ‘খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে। সেখানে অন্য কোনও কারাবন্দি নেই। তাকে (খালেদা জিয়াকে) ডিভিশন দেওয়া হয়নি। এটা সংবিধান পরিপন্থী। আমরা এটা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যাব। প্রয়োজন হলে আদালতে যাব।’

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে দেখা করঙলাসার পর এসব কথা বলেছেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। বিকালে ৪টা ২৬ মিনিটের দিকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারংলারে প্রবেশ করেন মওদুদ আহমদসহ সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার মুহাম্মদ জমিরউদ্দিন সরকার, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ব্যারিস্টার খন্দকার মাহাবুব হোসেন, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এ জে মোহাম্মদ আলী ও ব্যারিস্টার আব্দুর রেজ্জাক খান।

সাক্ষাৎ শেষে খালেদা জিয়ার ব্যাপারে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মওদুদ আহমদ। খালেদা জিয়ার সার্বিক অবস্থার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ম্যাডাম স্বাভাবিক আছেন, ভালো আছেন তবে তার শরীরের অবস্থা ভালো না।’

তিনি আরও বলেন, ‘রায়ের সত্যায়িত কপি পেলে আপিল করবো। এক্ষেত্রে সোমবারে কিংবা মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে।’

খালেদা জিয়ার ডিভিশন পাওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘জেলকোড অনুযায়ী তিনি ডিভিশন পান। তিনি যেহেতু তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং সিনিয়র নাগরিক তাই তার এ সুবিধা পাওয়া উচিত।’

এসময় মওদুদ আহমদ বলেন, ‘গণমাধ্যম থেকে জানতে পেরেছি, সরকার বলেছে ম্যাডামকে তার গৃহপরিচারিকা ও ডিভিশন দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা আজ দেখে এসেছি, এসব মিথ্যা। তাকে একটা নির্জন ভাঙা বাড়িতে রাখা হয়েছে। উনার খাবারের ক্ষেত্রেও কোনও পরিবর্তন নেই। সাধারণ বন্দিরা যে খাবার পান, তাকেও সেই খাবার দেওয়া হচ্ছে। ম্যাডাম এসব খাবারে অভ্যস্ত না।’

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের জেলের রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। এরপর রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রশাসনিক ভবনটিকে ‘সাবজেল’ ঘোষণা করে সেখানে রাখা হয়েছে তাকে। পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের অফিস ভবনের মূল ফটক দিয়ে ঢুকে বামেই সিনিয়র জেল সুপারের যে অফিস কক্ষ ছিল, সেখানেই তাকে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কারা কর্মকর্তারা।

বর্তমানে ওই কারাগারে আর কোনও বন্দি নেই। ২০১৬ সালের ২৯ জুলাই ভোর সাড়ে ৬টার থেকে শুরু করে সারাদিন রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোড থেকে সাড়ে ছয় হাজার বন্দিকে কেরানীগঞ্জে নবনির্মিত কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। এরপর থেকে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার বন্দিশূন্য ছিল।

দীর্ঘ ৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে এর আগে একবার কারাগারে যেতে হয়েছিল খালেদা জিয়াকে। ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়। তখন জাতীয় সংসদ ভবন এলাকার স্পিকারের বাসভবনকে সাবজেল ঘোষণা দিয়ে সেখানে রাখা হয়েছিল তাকে। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর উচ্চ আদালতের এক আদেশে খালেদা জিয়া মুক্তি পান

শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য দিন

সর্বশেষ
পঞ্জিকা
নভেম্বর ২০১৮
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি
« অক্টো    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
ছবি গ্যালারি