১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ । ১ আশ্বিন, ১৪২৬

ভন্ডপীরের কান্ড: গৃহপরিচারিকা ধর্ষণ অত:পর সন্তান প্রসব (ভিডিও সহ)।

নিজস্ব প্রতিবেদক | জানুয়ারি ২৮, ২০১৮ - ৬:০৩ অপরাহ্ণ

চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুরে এক ভন্ডপীরের কান্ড নিয়ে তুলকালাম চলছে। ধর্ষণের মাধ‍্যমে গৃহপরিচারিকাকে অন্ত:সত্বা করার পর নিজে বাঁচতে আবার বিয়েও দিয়েছেন অন‍্যত্র। আর বিয়ের ৬ মাসের মাথায় সন্তান প্রসব করার পরই সামনে চলে আসে পুরো ঘটনা। ঘটনাটি ঘটেছে, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার অর্তগত সুবিদপুর গ্রামে।

অভিযোগকারী জান্নাত এর লিখিত বক্তব্য ও মৌখিক জবানবন্দী থেকে যা বেরিয়ে আসে, বাবা অসচ্ছল হওয়ায় খুব ছোট বেলা থেকেই পার্শ্ববর্তী পীর আতিকুল্লাহ ওরফে আবু বকর সিদ্দিকী-র বাড়িতে গৃহপরিচারিকা’র কাজ করত জান্নাত প্রকাশ দুলফী। বেশ কয়েক বছর কাজ করার পর দুলফীর নারীত্ব যখন প্রকাশ পেতে থাকে তখনি কথিত ভন্ড পীর আতিকুল্লাহ’র কু-দৃষ্টি পরে দুলফীর উপর। কথিত ভন্ডপীর তার লালসা মিটাতে বিভিন্ন ভাবে জান্নাত দুলফীকে বস করার চেষ্টা করে।

চেষ্টায় সফলও হয় ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ। একদিন-দুদিন নয়, টানা ২ বছর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে দুলফী’কে। এদিকে দুলফী নিজের অজান্তে অন্তঃসত্বা হয়ে পড়ে। গর্ভে আসে কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ’র সন্তান। ২ মাসের অন্তঃসত্বার বিষয়টি দুলফী যখন ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ’কে জানায়, তড়িঘড়ি করে পার্শ্ববতি বুদ্ধি-প্রতিবন্ধী আমির হোসেন নামের এক যুবকের সাথে রাতের আধারে কোন রকম বৈধ কাগজপত্রাদি ছাড়া গত ৮ ফ্রেরুয়ারী ২০১৭ সালে শুধু মাত্র কালেমা পড়িয়ে জান্নাত দুলফী ও আমির হোসেন এর বিয়ের কাজ সম্পাদন করেন এই ভন্ডপীর।

বিয়ের মাত্র ৬ মাস পর গত ৮ জুলাই ২৯১৭ তারিখে দুলফী এক পিত্র সন্তানের জন্ম দেয়। আর তখনি বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। বিষয়টি নিয়ে পুরো সুবিদপুর তথা চাঁদপুর জুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠে। দুলফীর পুত্র সন্তানের বাবা কে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সন্দেহের আঙ্গুল উঠে কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ’র দিকে। প্রথমে নানান ভয়ভিতির কারণে দুলফী মুখ না খুললেও সন্তানের আসল পিতার পরিচয়েই তাকে মানুষ করবে বলে পরে সিদ্ধান্ত নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২১ জানুয়ারি চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার বরাবর প্রথমে লিখিত আবেদন এবং পরে স্বশরীরে বাবা এমরান ও এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে ২৫ জানুয়ারী জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়।

এ মর্মে গত ২৪ জানুয়ারি সুবিদপুর দরবার শরিফ থেকে কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ’কে পুলিশ সুপার চাঁদপুর এর নির্দেশে গ্রেফতার করে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। ২৫ জানুয়ারি ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ’কে জেলা আদালতে হাজির করলে, আদালত তাকে জেলে প্রেরণ করেন। বর্তমানে ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ ওরোফে আবুবকর সিদ্দিকীন চাঁদপুর জেলা কারাগারে রয়েছেন।

উল্লেখ‍্য, এই ভন্ড পীর আতিকউল্লাহ বাইটকোড নামক আইটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা মাহবুব ওসমানী-র পিতা। অনলাইন ব‍্যবসার নামে এই মাহবুব ওসমানীর নামেও বিভিন্ন প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে।

ফরিদগঞ্জে গৃহপরিচারিকা ধর্ষণ অতপর সন্তান প্রসবকথিত ভন্ড পীর আতিকুল্লাহ জেল হাজতেবাংলা-রিপোর্ট: কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ'র লালসার শিকার কিশোরী গৃহপরিচারিকা জান্নাত ( দুলফী) অবৈধ সন্তান মেশকাত এর বৈধ শীকৃতি পাওয়ার জন্য চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার সামসুন্নাহার এর কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।বাংলা-রিপোর্ট নিউজ। ঘটনাটি ঘটেছে, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার অর্তগত সুবিদপুর গ্রামে। অভিযোগকারী জান্নাত এর লিখিত বক্তব্য ও মুখিক জবানবন্দী থেকে যা বেরিয়ে আসে, বাবা অসচ্ছল হওয়ায় খুব ছোট বেলা থেকেই পার্শ্ববর্তী পীর আতিকুল্লাহ ওরোফে আবুবকর সিদ্দিকীন এর বাড়িতে গৃহপরিচারিকা'র কাজ করত জান্নাত প্রকাশ দুলফী। বেশ কয়েক বছর কাজ করার পর দুলফীর নারীত্ব যখন প্রকাশ পেতে থাকে তখনি কথিত ভন্ড পীর আতিকুল্লাহ'র কু-দৃষ্টি পরে দুলফীর উপর। কথিত ভন্ডপীর তার লালসা মিটাতে বিভিন্ন ভাবে জান্নাত দুলফীকে বস করার চেষ্টা করে। চেষ্টায় সফলও হয় ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ। একদিন নয় দুদিন নয় টানা ২ বছর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে দুলফী'কে। এদিকে দুলফী নিজের অজানতে অন্তঃসত্বা হয়ে পরে। গর্ভে আসে কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ'র সন্তান। ২ মাসের অন্তঃসত্বার বিষয়টি দুলফী যখন ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ'কে জানায়, তরিগরি করে পার্শ্ববতি এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী আমির হোসেন নামের এক যুবকের সাথে রাতের আধারে কোন রকম বৈধ কাগজপ্রত্রাদি ছাড়া গত ৮ ফ্রেরুয়ারী ২০১৭ সালে শুধু মাত্র কালেমা পরিয়ে জান্নাত দুলফী ও আমির হোসেন এর বিয়ের কাজ সম্পাদন করেন এই ভন্ডপীর। বিয়ের মাত্র ৬ মাস পর গত ৮ জুলাই ২৯১৭ তারিখে দুলফী এক পিত্র সন্তানের জন্ম দেয়। আর তখনি বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। বিয়ের মাত্র ৬ মাসে সন্তান জন্ম দেয়ার বিষয়টি নিয়ে পিরো সুবিদপুর তথা চাঁদপুর জুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠে সর্বত্র। দুলফীর কোলজুড়ে পুত্র সন্তানের বাবা কে এবিষয়ে জানতে চাইলে সন্ধেহের আগুল উঠে কথিত ভন্তপীর আতিকুল্লাহ'র দিকে। প্রথমে নানান ভয়ভিতির কারণে জান্নাত দুলফী মুখ না খোললেও সন্তানের আসল পিতার পরিচয়েই তাকে মানুষ করবে বলে দুলফী সিধান্ত নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২১ জানুয়ারি চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার বরাবর প্রথমে লিখিত আবেদন এবং পরে স্বসরিলে বাবা এমরান ও এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে ২৫ জানুয়ারী জবানবন্দী রেকড করা হয়। এমর্মে গত ২৪ জানুয়ারি সুবিদপুর দরবার শরিফ থেকে কথিত ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ'কে পুলিশ সুপার চাঁদপুর এর নির্দেশে গ্রেফতার করে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। ২৫ জানুয়ারি ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ'কে জেলা আদালতে হাজির করলে, আদালত তাকে জেলে প্রেরণ করেন। বর্তমানে ভন্ডপীর আতিকুল্লাহ ওরোফে আবুবকর সিদ্দিকীন চাঁদপুর জেলা কারাগারে রয়েছেন।সংবাদ এর সাথে জান্নাত এর লিখিত ও রেকডকৃত জবানবন্দী দেয়া হলো।

Posted by Banglar Shomoy on Donnerstag, 25. Januar 2018

শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য দিন

সর্বশেষ
পঞ্জিকা
সেপ্টেম্বর ২০১৯
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহঃ শুক্র শনি
« ফেব্রু    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
ছবি গ্যালারি