স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সফল উদ্যোক্তা তৈরি, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে গবেষণা ও উদ্ভাবনী কার্যক্রমকে উৎসাহিত করা এবং ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া কোলাবোরেশনকে সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে অধিকতর ভূমিকা রাখার নিমিত্তে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সর্বপ্রথম চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) নির্মিত হচ্ছে ‘শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর’।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েটের আইসিটি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে ড্রিম প্রজেক্ট নির্মিত হচ্ছে ।চুয়েট সূত্র জানায়, প্রায় ১২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫ একর জায়গাজুড়ে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ হয়ে এখন উদ্বোধনের প্রহর গুণছে।

এটি সফলভাবে বাস্তবায়ন হলে দেশের তথ্য-প্রযুক্তি খাতে নতুন দিগন্তের সূচনা হবে। পাশাপাশি ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় এটি নতুন মাইলফলক হিসেবে চিহ্নিত হতে পারে।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

বলা হয়, ইনকিউবেটরে ১ ডলার বিনিয়োগ করলে ৩০ ডলার আয় করা যায়। সেই হিসেবে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিতে প্রত্যক্ষ ভূমিকা রাখবে চুয়েটের এই শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প।

ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য সফলভাবে অর্জনের জন্য দক্ষ জনবল গড়ে তোলা এবং তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দেশীয় সক্ষমতা যুগোপযোগী করা ও উদ্যোক্তা তৈরির প্রয়োজনীয়তা ছিল অপরিহার্য। বিশ্ববিদ্যালয়ভিত্তিক আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য হচ্ছে একাডেমিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গবেষণা উদ্ভাবন এবং উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য একটি কার্যকর ব্যবস্থা।

এই গুরুত্ব বিবেচনা করে, আইসিটি বিভাগের অধীনে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ২০১২ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর স্থাপনের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করে।

প্রাথমিকভাবে চুয়েটে ইনকিউবেটর স্থাপনে আইসিটি বিভাগ প্রস্তাব করে ২০১২ সনে। আইসিটি ডিভিশন থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পর চুয়েট প্রশাসন প্রস্তাবটি গ্রহণ করে এবং চুয়েট ক্যাম্পাসে প্রকল্পের অনুকূলে প্রায় ৪.৭ একর জমি বরাদ্দ করে। তৎকালীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রেক্ষাপটে এটি ছিল একটি বৈপ্লবিক উদ্যোগ।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

প্রাথমিকভাবে, এটি ‘চুয়েট আইটি বিজনেস ইনকিউবেশন সেন্টার’ নামে নামকরণ করা হয়। কিন্তু নানা জটিলতায় উদ্যোগটি ২০১৫ সালের দিকে বন্ধ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে আইসিটি বিভাগের বাজেট মনিটরিং কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে প্রায় ২ বছর পরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) ২৬ তম সভায় ২০১৭ সনের ৬ জুন একনেক চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ প্রকল্পের অনুমোদন দেন। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সনের জুনের মধ্যে ‘চুয়েট আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর স্থাপন’ নামে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শুরুর দিকে এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল ৮২ দশমিক ২ কোটি টাকা। পরবর্তী ধাপে সেই ব্যয় ৯৪ দশমিক ২৫ কোটি থেকে ১১৭ দশমিক ৭০ কোটি টাকায় উন্নীত হয়। বর্তমানে প্রকল্পের ব্যয় বেড়ে প্রায় ১২৫ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে।

কোভিড-১৯ মহামারির কারণে দীর্ঘদিন যাবত নির্মাণকাজ বন্ধ থাকায় সর্বশেষ ২০২২ সালের জুলাইয়ে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করার জন্য নতুন সময়সীমা নির্ধারণ করা হলেও আগামী মার্চ মাসে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করে উদ্বোধন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্পের আওতায় ৫ একর জমির ওপর ৫০ হাজার বর্গফুট আয়তনের ১০ তলাবিশিষ্ট একটি ইনকিউবেশন ভবন এবং ৩৬ হাজার বর্গফুটের ৬ তলাবিশিষ্ট একটি মাল্টিপারপাস প্রশিক্ষণ ভবন তৈরি হচ্ছে।

ইনকিউবেশন ভবনের মধ্যে থাকছে : স্টার্টআপ জোন, আইডিয়া/ইনোভেশন জোন, ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিক জোন, ব্রেইনস্টর্মিং জোন, এক্সিবিশন সেন্টার, ই-লাইব্রেরি  জোন, ডাটা সেন্টার, রিসার্চ ল্যাব, ভিডিও কনফারেন্সিং কক্ষ, সভাকক্ষ প্রভৃতি। এছাড়া ব্যাংক ও আইটি ফার্মের জন্য পৃথক কর্নার, অত্যাধুনিক সাইবার ক্যাফে, ফুড কোর্ট, ক্যাফেটেরিয়া, রিক্রিয়েশন জোন, মেকার  স্পেস, ডিসপ্লে জোন, প্রেস/মিডিয়া কাভারেজ জোন প্রভৃতি থাকবে।

অন্যদিকে মাল্টিপারপাস প্রশিক্ষণ ভবনে ২৫০ জনের ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন সুসজ্জিত অডিটোরিয়াম এবং ৫০ জনের ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন পৃথক চারটি কম্পিউটার ল্যাব কাম সেমিনার কক্ষ থাকছে। পাশাপাশি প্রতিটি ২০ হাজার বর্গফুট আয়তনের ৪ তলাবিশিষ্ট পৃথক দুইটি (একটি নারী, একটি পুরুষ) আবাসিক ডরমিটরি ভবন নির্মিত হচ্ছে।

প্রতিটি ডরমিটরিতে ৪০ টি কক্ষ রয়েছে। এছাড়া একটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) ল্যাব, একটি মেশিন লার্নিং ল্যাব, একটি অপটিক্যাল ফাইবার ব্যাকবোন, একটি সাব-স্টেশন ও সোলার প্যানেল স্থাপন করা হচ্ছে।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

চুয়েট সূত্র জানায়, তথ্যপ্রযুক্তির সাথে সংশ্লিষ্ট বিভাগসমূহ যেমন – সিএসই, ইটিই, ইইই, আইসিটি/আইআইসিটি’তে পড়াশোনা করা গ্র্যাজুয়েটদের পাশাপাশি চুয়েটের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ দেশের প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন যেকোনো উদ্যমী উদ্যোক্তা এই ইনকিউবেটরে কাজ করার সুযোগ পাবেন।

এখানে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে যে কেউ তাদের উদ্ভাবনী পরিকল্পনা নিয়ে ব্যবসা কার্যক্রম শুরু করতে পারবেন। ইনকিউবেটরের অবকাঠামো ও অন্যান্য লজিস্টিক সুবিধা ব্যবহার করে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে যেমন কাজ করার সুযোগ মিলবে তেমনি নিবন্ধিত উদ্যোক্তা হিসেবেও কাজ করার সুযোগ পাবেন।

উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে ও উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার জন্য ইনকিউবেটরে দেশ-বিদেশের বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ প্রদান, সফল উদ্যোগের জন্য সহজ শর্তে ঋণ প্রদান, উচ্চগতির ইন্টারনেট সংযোগ, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, উদ্যোক্তাদের থাকার জন্য ডরমিটরিসহ সবধরনের সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।

কীভাবে একজন উদ্যোক্তা ইনকিউবেটরে কাজ করবেন প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে চুয়েটের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম বাসস’কে জানান, ‘ধরুন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের আপনি একজন উদ্যোক্তা।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

আপনি দীর্ঘদিন গবেষণার মাধ্যমে একটি ব্যতিক্রমী ও ইনোভেটিভ আইডিয়া নিয়ে কাজ করে প্রাথমিকভাবে সফলতা পেলেন।

ইনকিউবেটর কর্তৃপক্ষও যাচাই-বাছাই করে আপনার সেই উদ্যোগের ব্যাপারে ইতিবাচক। তাদের তত্ত্বাবধানে সেই আইডিয়া/স্টার্টআপটি আপনি আরও বহুদূর এগিয়ে নিতে চান। তখন আপনার সেই উদ্যোগ/স্টার্টআপকে বাণিজ্যিক রূপ দিতে সবধরনের সহায়তা দিতে একযোগে কাজ করবেন ইনকিউবেটর সংশ্লিষ্টরা। এভাবে বাজারে আপনার উদ্যোগটি সফলতার মুখ দেখলে আপনি হয়ে উঠবেন একজন সফল প্রযুক্তি উদ্যোক্তা।’

চুয়েট সূত্র জানায়, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম, এনডিসি ২০২০ সালের ১৩ নভেম্বর শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের নির্মাণকাজ পরিদর্শনে এসে প্রকল্পটিকে বর্তমান সরকারের একটি ‘ড্রিম প্রজেক্ট’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

সরকারের পক্ষ থেকেও এই প্রকল্পের তদারকি, বাজেট কিংবা অন্যান্য সবরকমের সহযোগিতার ব্যাপারে আন্তরিকতার অভাব নেই। সরকার যেকোনোভাবেই দেশের প্রথম এই উদ্যোগের সফলতা দেখতে চাইছে। তাই প্রকল্পটিকে ঘিরে সরকার, হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ চুয়েট পরিবারের সকলের প্রত্যাশার পারদ অনেক উঁচুতে।

স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

এছাড়া নগরীর চান্দগাঁও এলাকায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার, আগ্রাবাদের সিংগাপুর-ব্যাংকক মার্কেটে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক ও আইটি পার্ক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বমানের আইটি পার্ক প্রভৃতির মাধ্যমে পুরো চট্টগ্রামকে ঘিরে একটি ‘আইটি বিজনেস হাব’ গড়ে তোলার জন্য সরকারের পক্ষ থেকেও নানাবিধ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

চুয়েটের ইনকিউবেটর সংশ্লিষ্টরা জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে ডিজিটাল বিশ্বে বাংলাদেশ এখন একটা উদীয়মান নাম। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতের দ্রুত পরিবর্তন ও তার সুফল ইতোমধ্যে আমরা দেখতে পাচ্ছি। বিগ ডাটা ও মেশিন লার্নিং বর্তমান বাস্তবতায় প্রযুক্তির নতুন ডাইমেনশন।

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই), ইন্টারনেট অফ থিংস (আইওটি), ক্লাউড কম্পিউটিং, রোবটিক্স, থ্রিডি প্রিন্টিং, ব্লকচেইন, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন তারবিহীন প্রযুক্তি প্রভৃতি আমাদের সক্ষমতাকে আরও এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে।স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জাতীয় উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে এসব উন্নত প্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে হবে। চুয়েটের শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর এসব প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে দেশের শিক্ষা ও গবেষণা ক্ষেত্রে একটি বিপ্লব তৈরি করবে, এমনটাই প্রত্যাশা করছেন ইনকিউবেটর সংশ্লিষ্টরা।

এ ইনকিউবেটরের মাধ্যমে আগামীর সম্ভাবনা প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্টরা জানান, বিজনেস ইনকিউবেটর স্থাপনের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে বিশ্বে তাক লাগিয়েছে চীন ও ভারত। সে পথেই হাঁটছে বাংলাদেশ। চুয়েটের আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর সৃষ্টিশীল তরুণদের জন্য খুলে দিতে পারে অপার সম্ভাবনার দ্বার।

এই ইনকিউবেটরের মাধ্যমে দেশের তরুণ প্রজন্মের আতœকর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের হাতছানি দিচ্ছে। আমাদের দেশের তরুণরা এখনও শুধুই চাকরির পেছনে ছুটছে। নানা প্রতিকূলতার কারণে দেশের তরুণরা উদ্যোক্তা হওয়ার সাহস দেখাতে পারছে না।

কিন্তু আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরের মাধ্যমে দেশের প্রযুক্তি খাতে উদ্যোক্তা হওয়ার পথ সহজ করে দেবে। এই ইনকিউবেশন সেন্টারে বসে সৃজনশীল আইডিয়া কাজে লাগিয়ে যে কেউ তৈরি করতে পারবেন স্টার্টআপ বা প্রোডাক্টিভ সার্ভিস, যা বাজারজাত করার দায়িত্ব নেবেন ইনকিউবেটর সংশ্লিষ্টরা।স্বপ্ন ডানা মেলার অপেক্ষায় সরকারের ড্রিম প্রজেক্ট চুয়েট শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর

প্রয়োজন শুধু কিছু ইউনিক, ইনোভেটিভ এবং মার্কেটে ভ্যালু আছে এমন আইডিয়া নিয়ে হাজির হওয়া। সেই সাথে থাকতে হবে প্রযুক্তি জ্ঞান, কাজের প্রতি একাগ্রতা ও সৃজনশীলতা। এসবের সমন্বয়ে যে কেউ হয়ে উঠতে পারেন চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের একজন দক্ষ কারিগর ও সফল উদ্যোক্তা।

আরও দেখুনঃ

আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতা কর্মীকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়ে উঠতে হবে : হুইপ স্বপন

তথ্য প্রযুক্তি

You May Also Like

About the Author: Ratna Roy