সানগ্লাস বা রোদচশমা ব্যবহারের উপকারিতা !

বাইরে এখন প্রচন্ড রোদের তাপ। তাই যারা প্রতিনিয়ত ঘরের বাইরে যান তাদের জন্য সানগ্লাস বা রোদ চশমা অতি গুরত্বপূর্ণ একটি অনুসঙ্গ।

 

চোখে যাতে অতিবেগুনি রশ্মি সরাসরি ভাবে না পড়ে বা ধুলোবালি এর কারনে চোখের কোন ক্ষতি না হয়, তার দিকে খেয়াল রাখা জরুরি। এর জন্য চশমা কেনার সময় কয়েকটি বিষয় খেয়াল ভালো ভাবে রাখতে পারেন। এর মধ্যে চশমায় অতিবেগুনি রশ্মি প্রতিরোধক কি না আর চশমা মুখের গড়নের সঙ্গে যায় কি না, সে দিকগিলো বিবেচনায় রাখতে হবে।

 

রোদচশমা ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনো বাঁধাধরা এর নিয়ম নেই। ব্যবহারিক দিক থেকে যেটি সুবিধাজনক আর মুখের সঙ্গে মানানসই হবে সেটি কেনা যেতে পারে। বাজারে পুরুষ এবং নারীদের জন্য আলাদা রকমের রোদচশমা রয়েছে। সেখান থেকে যাচাই-বাছাই করে পছন্দমতো রোদচশমা কিনতে পারেন আগ্রহী সকল ব্যক্তিরা।

 

চোখের পাশাপাশি চারপাশের ত্বক রোদে পুড়ে যাওয়া এর থেকে রক্ষা করতে রোদচশমা ব্যবহার জরুরি৷ প্রখর রোদে চশমা চোখকে আরাম প্রদান করে থাকে৷ তবে সকল ধরনের রোদচশমা আরাম না দিয়ে ক্ষতিও করতে থাকতে পারে৷ যেমন বাঁকা গ্লাস অথবা ফ্রেম শক্ত হলে চোখের জন্য ব্যথা হওয়ার কারন হতে পারে। এসকল বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে৷

 

ভালো রোদচশমা এর লেন্স থেকে অতিবেগুনি রশ্মির ৯৯ থেকে ১০০ শতাংশ আটকে দিতে পারে। এ ছাড়া দৃশ্যমান রোদের ৭৫ হতে ৯০ শতাংশ থেকে চোখকে আড়াল করেও রাখে। এই রোদচশমা রং আর আলো শোষণে সঠিকভাবে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং বিকৃতি ও অসম্পূর্ণতা থেকে মুক্ত। আলো আর রং সঠিকভাবে বুঝতে হলে ধূসর সানগ্লাস ভালো হয়ে থাকে।

 

সানগ্লাস বা রোদচশমা কেনার আগে যেগুলো মনে রাখতে হবে :

Read more

কথাসাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যাযয়ের প্রয়াণের ৫০ বছর

কথাসাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় Copyright by observerbd.com

বাংলা ভাষার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কথাসাহিত্যিকের ৫০তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৭১ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর তিনি কলকাতায় মারা যান। বিংশ শতাব্দীর অন্যতম লেখক …

Read more