ট্যাগ আর্কাইভঃ ঢাকা-মালে এর আজ শীর্ষ বৈঠক এবং বিশ্বব্যাংক

ঢাকা-মালে এর আজ শীর্ষ বৈঠক, বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে ৪২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে

ঢাকা-মালে এর আজ শীর্ষ বৈঠক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছয় দিনের সফরে গতকাল বুধবার বিকেলে মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে পৌঁছেছেন। মালদ্বীপের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আহমেদ খলিল ভেলানা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহর আমন্ত্রণে তিনি এ সফর করছেন।

ঢাকা-মালে এর আজ শীর্ষ বৈঠক

এদিকে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহর সঙ্গে বৃহস্পতিবার দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মালেতে আজ বৈঠক শেষে দুই দেশ দুটি চুক্তি ও দুটি সমঝোতা স্মারক সই করতে পারে। সম্ভাব্য চুক্তি দুটি দ্বৈত কর পরিহার এবং বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগের বিষয়ে। সম্ভাব্য সমঝোতা স্মারকগুলো বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসা বিজ্ঞান (নবায়ন) এবং দুই দেশের যুব ও ক্রীড়া ক্ষেত্রের উন্নয়নে সহযোগিতা বিষয়ে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে আজ বাংলাদেশ মালদ্বীপকে ১৩টি সামরিক যান উপহার দেবে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশ দুটির মধ্যে বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে মালদ্বীপের চাহিদা অনুযায়ী সামরিক যানগুলো উপহার দেওয়া হচ্ছে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আজ মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ আনুষ্ঠানিকভাবে অভ্যর্থনা জানাবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মালদ্বীপের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফয়সাল নাসিম, পার্লামেন্টের স্পিকার মোহাম্মদ নাশিদ এবং সে দেশের প্রধান বিচারপতি উজ আহমেদ মুতাসিম আদনান সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী মালদ্বীপের পার্লামেন্টে ভাষণ দেবেন। এ ছাড়া আজ সন্ধ্যায় মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আয়োজিত রাষ্ট্রীয় ভোজ সভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

বিশ্বব্যাংক,বাংলাদেশকে ৪২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে

সফরসূচি অনুযায়ী শেখ হাসিনা আগামীকাল শুক্রবার মালেতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেওয়া সংবর্ধনায় ভার্চুয়ালি যোগ দেবেন। সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী আগামী সোমবার বিকেলে ঢাকা পৌঁছবেন।

দেশে আধুনিক, নির্ভরযোগ্য এবং টেকসই বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা গড়তে বাংলাদেশকে ৫০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৪ হাজার ২৫০ কোটি টাকা (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ধরে)।

(২২ ডিসেম্বর)বুধবার  বিশ্বব্যাংক এর ওয়াশিংটন অফিস এই ঋণটির জন্য অনুমোদন দিয়েছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক এর ঢাকা অফিস।

 

ঢাকা অফিস হতে জানানো হয়েছে, বিশ্বব্যাংক এর ইলেকট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন মডার্নাইজেশন কর্মসূচির আওতায় বাংলাদেশকে এই ঋণটি অনুমোদন দিয়েছে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর ড্যান ড্যান চেন বলেন, গত দশকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা চারগুণেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ৯৯ শতাংশেরও বেশি মানুষ বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছে। কিন্তু বিদ্যুৎ বিতরণ নেটওয়ার্ক উৎপাদনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারেনি। এই প্রোগ্রামটি বিতরণ নেটওয়ার্কের আধুনিকীকরণ এবং টেকসহ বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে, যা একটি নিরাপদ এবং নির্ভরযোগ্য পাওয়ার সিস্টেমের মেরুদণ্ড।

প্রোগ্রামটি একটি আধুনিক গ্রিড সিস্টেম চালু করবে, যা বিদ্যুৎ এবং তথ্যের দ্বিমুখী প্রবাহকে সমর্থন করতে পারে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং চরম আবহাওয়ার ঘটনাসহ জলবায়ু এবং সাইবার ঝুঁকি থেকে দ্রুত পুনরুদ্ধার করতে সহায়তা করবে প্রকল্পটি। এটি সুপারভাইজরি কন্ট্রোল এবং ডেটা অধিগ্রহণ সিস্টেমের মতো অত্যাধুনিক প্রযুক্তি চালু করবে এবং উন্নত মিটারিং অবকাঠামো চালু করবে। এটি বিদ্যুৎ বিতরণ নেটওয়ার্কে নবায়ন শক্তি এবং ব্যাটারি শক্তি স্টোরেজ সিস্টেমের একীকরণের সুবিধার মাধ্যমে বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন করবে। এই সবই বিদ্যুৎ ব্যবস্থার টেকসই রূপান্তর ঘটাবে।

বিশ্বব্যাংক এর সিনিয়র এনার্জি স্পেশালিস্ট আর প্রোগ্রামের টিম লিডার বিপুল সিং বলেছেন, ২০০৯ সাল হতে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এর  বিশ্বের বৃহত্তম গ্রামীণ বিদ্যুতায়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেতে সক্ষম হয়েছে। ৯ কোটির বেশি মানুষের কাছে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে দিয়েছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড। এই প্রোগ্রামটি নির্ভরযোগ্যভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ আর পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এর ক্ষমতাকে শক্তিশালী করবে।

বিশ্বব্যাংকের অঙ্গভুক্ত প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (আইডিএ) নমনীয় শর্তে এ ঋণ দিচ্ছে বাংলাদেশকে। এখানে পাঁচ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৩০ বছরের মেয়াদ রয়েছে। এছাড়াও, প্রোগ্রামটিতে ক্লিন টেকনোলজি ফান্ড হিসেবে ১৫ মিলিয়ন অনুদান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এই কর্মসূচিসহ, নবায়নযোগ্য শক্তির উৎস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন এবং বিতরণের জন্য বাংলাদেশের জ্বালানি খাতে বিশ্বব্যাংকের ১৮০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ চলমান সহায়তা রয়েছে। ১৯৮১ সাল থেকে বিশ্বব্যাংক পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এর বিদ্যুতায়ন ব্যবস্থা শক্তিশালীভাবে করতে কাজ করছে।

বাংলাদেশে বর্তমানে ১৪ বিলিয়ন ডলারের বেশি সহায়তা চলমান রেখে আইডিএ। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী। স্বাধীনতার পর থেকে সংস্থাটি বাংলাদেশে ৩৫ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি অনুদান, সুদ-মুক্ত ঋণ, ঋণ এবং শহত শর্তে ঋণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

[ঢাকা-মালে এর আজ শীর্ষ বৈঠক এবং বিশ্বব্যাংক,বাংলাদেশকে ৪২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে]

আরও পড়ুন: